ফেব্রুয়ারী 15, 2020

প্রথমে, গত সপ্তাহের ঘটনাবলির পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। টানা দুসপ্তাহের জন্য এই জোড়ার ক্ষেত্রে দীর্ঘ অবস্থানে স্টপ-লস অর্ডার দেখা গেছে। বুলস সরে গেছে, তাদের রক্ষণের সমস্ত লাইন থেকে সফলভাবে আত্মসমর্পণ করেছে। এই জোড়া শুধু এটা এবং গত বছরের লো আপডেট করেনি, এইসঙ্গে এটি সর্বনিম্ন মূল্যে পৌঁছেছে মে 2017-র পর। আর সবচেয়ে কৌতূহলকর বিষয় হল যে ইউরোপিয়ান কারেন্সির এরকম বিপর্যয়ের গুরুততর কোনো কারণ নেই। আপনি ‘কালো বৃহস্পতিবার’-এর ওপর ইএসডি সিএইচএফ জোড়ার বিপর্যয় ব্যাখ্যা করতে পারেন যা ঘটেছিল জানুয়ারি 2015-তে অথবা গণভোটের পর ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের নিষ্ক্রমণের প্রেক্ষিতে পাউন্ডের পতন ব্যাখ্যা করতে পারেন। কিন্তু এখানে দেখা যাচ্ছে অস্বাভাবিক কিছুই ঘটেনি।
    বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন যে বিভিন্ন কারণের সামগ্রিক ফলাফল হয়তো এই সত্যে উপনীত হয়েছে যে গত দুই সপ্তাহে ইউরোকে 270 পয়েন্ট ঠেলে দিয়েছে ডলার, এবং বাস্তবে, এটাই ঘটেছে। তাদের মধ্যে ব্যবধান হল ইসিবি ও ফেড-এর অবস্থান ইজিং (কিউই) পলিসির প্রেক্ষিতে এবং সুদের হারের মূল্য, পাশাপাশি ইউরো জোনে দীর্ঘকালীন রিসেশন সম্পর্কে আশঙ্কা, যার কারণ জার্মান ও ইইউ অর্থনীতির ধূসর ম্যাক্রোইকোনমিক ইন্ডিকেটর। করোনা ভাইরাসই শেষ কথা নয়, কারণ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো নয়, ইউরোপিয়ান অর্থনীতি বেশি আশঙ্কিত চিনা ঝুঁকির ওপর। ঐতিহ্যগতভাবে, ডলার সমর্থিত হয়েছে মার্কিন ট্রেজারির একগুচ্ছ সরকারি বন্ড অফারিং দ্বারা।
    এটা বলা খুব কঠিন যে এর মধ্যে কোন উপাদান বিশেষজ্ঞদের সমীক্ষা চালিত করেছে, কিন্তু তাঁদের অধিকাংশ যে পূর্বানুমান করেছেন তা ছিল একেবারে নিখুঁত। স্মরণ করা যাক, এইচ4 গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ দ্বারা সমর্থন করা হয়েছিল বিশেষজ্ঞদের 60 শতাংশকে, ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরের 100 শতাংশ এবং অসিলেটরের 85 শতাংশ, সকলেই নিশ্চিত ছিলেন যে জোড়াটির ধারাবাহিকভাবে পতন ঘটবে। লক্ষ্য ছিল নভেম্বর-অক্টোবর 2019-এর সর্বনিম্ন প্রায় 1.0880-র পরীক্ষা। পরীক্ষাটি সফল হয়েছিল, পাঁচ-দিনব্যাপী পর্ব জোড়াটি শেষ করে 1.0835-এ।
  • জিবিপি/ইউএসডি। ব্রিটিশ কারেন্সি এটা দেখাতে চাইছে যে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে তাদের দেশের বেরিয়ে আসা ছিল একেবারে সঠিক। ব্রিটিশের পাউন্ডের পাশাপাশি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের কারেন্সি ইউরো, এবং ইউরোর ধারাবাহিকভাবে পতন ঘটেছে, উলটোদিকে গত সপ্তাহে পাউন্ডের বিকাশ ঘটেছে, প্রায় 200 পয়েন্ট যোগ হয়েছে এবং সর্বোচ্চ উচ্চতা 1.3070-তে পৌঁছেছিল।
    প্রাথমিকভাবে, চ্যান্সেলর সাজিদ জাভিদের, যিনি প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের কর্মী নীতিতে অসম্মত ছিলেন, অপ্রত্যাশিত পদত্যাগের পর, পাউন্ড পড়ে গিয়েছিল, কিন্তু ইউকে ফিনান্স মিনিস্ট্রির প্রধান রিশি সুনাক হওয়ার পরই এটি খুব দ্রুত ঘুরে দাঁড়ায়, সুনাক হলেন অভিজ্ঞ ফিনান্সার এবং কাকতালীয়ভাবে এক বিলিয়নিয়ারের জামাই। কর কর্তন ও বর্ধিত বাজেট খরচ, যাতে সুনাক ক্ষমাপ্রার্থী, কিন্তু তিনিই ব্রিটিশ কারেন্সিতে সত্যিকারের আগ্রহ সৃষ্টি করতে পারেন।
    গত সপ্তাহের প্রদত্ত অনুমান বিশ্বাস করেছিল যে উচ্চ প্রবণতার বৈপরীতের ঘটনা ঘটবে, পাউন্ড 1.2975 রেজিস্ট্যান্স পার করবে এবং সম্ভবত 1.2800-1300 চ্যানেলের উচ্চসীমা ভেঙে দেবে। আর ঠিক এটাই ঘটেছে : জোড়াটি শেষ করে 1.3045-এ।
  • ইউএসডি/জেপিওয়াই। মনে হচ্ছে যে বুলস 110.00 স্তরে গ্রহণ করতে পারে না। এখনও নয়। জোড়াটি চেষ্টা করেছে মধ্য-জানুয়ারিতে যেখানে ছিল তার ওপরে থাকতে এবং ফের সেটাই চেষ্টা করেছে ফেব্রুয়ারিতে। কিন্তু আবার, পারেনি। এমনকি নিরাপদ-স্বর্গ কারেন্সি ডলারের শক্তিবৃদ্ধিও কোনো সাহায্য করতে পারেনি। সপ্তাহের মাঝখানে তারা মাত্র 110.13-এ পৌঁছেছিল, জোড়াটি ফের ঘোরে এবং শেষ করে 109.77-এ।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। করোনা ভাইরাসের কারণে সৃষ্ট আর্থিক গোলমাল থেকে সেরা আশ্রয় কী? ডলার? হ্যাঁ, সত্যিই, এটি ইউরো এবং বেশকিছু অন্যান্য কারেন্সির প্রেক্ষিতে দৃঢ় বিকাশ দেখায়। কিন্তু ডলারের চেয়েও বেশি দৃঢ় বিকাশ দেখায় বিটকয়েন। গত সপ্তাহে, 80 শতাংশ বিশেষজ্ঞ ভেবেছিলেন যে বিটিসি/ইউএসডি জোড়া পৌঁছবে 10.450 ডলারে। এবং তাঁদের অনুমান ছিল 99.99 শতাংশ সঠিক : বৃহস্পতিবার, 13 ফেব্রুয়ারি, এটা পৌঁছেছিল 10.490 ডলার উচ্চতায়। সেজন্য, জানুয়ারির শুরু থেকে, মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে 45 শতাংশেরও বেশি।
    তাহলে, বিটকয়েনই কি শ্রেষ্ঠ নিরাপদ স্বর্গ?
    যদিও যেমন এটা ঘটেছে, এমনকি আরও আকর্ষণীয় সম্পদ আছে। বিটকয়েনের চাহিদা শীর্ষ অল্টকয়েনেরও চাহিদা বাড়িয়েছে যেমন এথেরিয়াম (ইটিএইচ/ইউএসডি), লাইটকয়েন (এলটিসি/ইউএসডি), রিপল (এক্সআরপি/ ইউএসডি) এবং অন্যান্য। এবং যদি এরা ক্রিপ্টোকারেন্সির উত্থানের আগে অনুসরণ করত, তাহলে এদের কয়েকটি আরও এগিয়ে থাকত। উদাহরণ স্বরূপ, বছরের শুরু থেকে এথেরিয়াম বৃদ্ধি পেয়েছে 120 শতাংশ মূল্যে, কিন্তু এটির গত সপ্তাহ থেকে মাত্র 35 শতাংশ বৃদ্ধি হয়েছে।
    বিকল্প কয়েনের এসব ক্রিয়াকলাপ ক্রিপ্টোমার্কেটে বিটকয়েনের মোট ক্যাপিটালাইজেশনে প্রভাব ফেলেছে : যদি জানুয়ারির প্রথমে এটা ছিল 70 শতাংশ, আজ এটা নেমেছে 62.4 শতাংশে। তাই শ্রেষ্ঠ সম্পদ-স্বর্গের আলোচনা এখনও শেষ হয়নি।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, বেশকিছু সংখ্যক বিশেষজ্ঞের মতামতের সংক্ষেপের পাশাপাশি টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/এসডি। আগামী সপ্তাহের ক্যালেন্ডার প্রাথমিক বিশ্লেষণ বিশেষজ্ঞদের জন্য তথ্যে পরিপূর্ণ। যদিও ইউরোজোনের জন্য, আগে থেকে কোনো ভালো কিছুর প্রতিশ্রুতি দেয়নি অনুমান। আশা করা হচ্ছে যে সরকারি নির্দেশের ইন্ডিকেটর যা জার্মানি ও ইউরোজোন – জেডইডব্লিউ-র ব্যবসা পরিবেশের চরিত্র স্তির করে, মঙ্গলবার, 18 ফেব্রুয়ারি এবং 21 ফেব্রুয়ারিতে মার্কিট – আগের চেয়ে নীচে থাকবে। 20 ফেব্রুয়ারির ইসিবি মিটিঙের রিপোর্ট এই নিরাশায় হয়তো যুক্ত হবে। এসবই ডলারের প্রেক্ষিতে ইউরোকে আরও ক্ষতির দিকে নিয়ে যাবে। করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ইতিবাচক খবর এই প্রবণতাকে ঘুরিয়ে উপরে নিয়ে যেতে সক্ষম হবে, কিন্তু এই মুহূর্তে কোনো ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন।
    এইচ4 ও ডি1-এ ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরের ১০০ শতাংশের রং লাল। পাশাপাশি অসিলেটরের ৬৫ শতাংশ দেখাচ্ছে নীচে। লক্ষ্য হল 1.0700 এবং 1.0525। যদিও, অসিলেটরের বাকি 35 শতাংশ ইতিমধ্যেই অতিরিক্ত বিক্রি জোনে রয়েছে, যা সম্ভাব্য উচ্চ প্রবণতার খুব শক্তিশালী সংকেত। অথবা, অন্তত, গুরুতর সংশোধনের জন্য, যা, এইচ4-এ গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের সংকেত অনুযায়ী, জোড়াটি ফিরে আসতে পারে 10900 জোনে, এবং হয়তো এটি 1.1000 মার্কের কাছাকাছি যাবে।
    এই মুহূর্তে, বিশেষজ্ঞদের মাত্র 40 শতাংশ জোড়াটির বিকাশের পক্ষে রয়েছেন, যদিও, যখন মাসিক অনুমানে যাবে, তাদের নম্বর বৃদ্ধি পাবে 65 শতাংশে।

  • জিবিপি/ইউএসডি। এটা সম্ভব যে চ্যান্সেলর সাজিদ জাভিদের পদত্যাগ ছাড়া যুক্তরাজ্য এই কঠিন সময়ে অন্যান্য বিস্ময় উত্থাপন করতে পারে। যেমন তারা বলে ব্রেক্সিট সম্পর্কে, জঙ্গলে যত এগোবে, ততই বৃক্ষ হবে পুরু। এখনের জন্য ছবিটা দেখাচ্ছে এরকম। এইচ4-এ প্রবণতা ইন্ডিকেটর সংকেত দেয় : 95 শতাংশ আরোহণ, 5 শতাংশ অবরোহণ, ডি1-এ 75 শতাংশ ঊর্ধ্ব, 25 শতাংশ পতন। অসিলেটর : এইচ4-এ 90 শতাংশ সবুজ, 10 শতাংশ অতিরিক্ত ক্রয়, যখন মাঝারি-মেয়াদ অনুমানের দিকে যায়, এদের অধিকাংশই (65 শতাংশ) বুলের সঙ্গে পাশে থাকে। নিকটতম বুলিশ টার্গেট হল 1.3200 রেজিস্ট্যান্স স্তর 1.3070, 1.3115 এবং 1.3160। সমর্থন : 1.3000, 1.2970, 1.2940  এবং 1.2880।    
  • ইউএসডি/জেপিওয়াই। এই জোড়ার সপ্তাহব্যাপী সাইডওয়ে প্রবণতার পর, ইন্ডিকেটরদের মধ্যে সম্পূর্ণ মতভেদ দেখা গেছে। বিশেষজ্ঞদের 70 শতাংশ, এইচ4 ও ডি1-এ গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ দ্বারা সমর্থিত, তাকিয়েছে উত্তরের দিকে। তাদের পরিস্থিতি অনুযায়ী, এই জোড়ার উচিত শেষপর্যন্ত 110.00 রেজিস্ট্যান্স পেরিয়ে যাওয়া এবং আরও 80-100 পয়েন্ট উঁচুতে ওঠা। বিশ্লেষকদের বাকি 30 শতাংশ নিরাশাবাদীই রয়েছেন। তাঁদের মতে, স্টক মার্কেটের পতন এবং সরকারি বন্ডের ফসল হয়তো এই জোড়ার পতন ঘটাতে পারে 109.10-109.30 জোনে, এরপর সাপোর্ট হল 108.30 এবং 107.65।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। ক্রিপ্টো মার্কেট গুরুদের অনুমান বরাবরের মতো, প্রাণময়তায় উপচে পড়ছে। এবছরের মধ্যে বিটকয়েন বিনিময় হার বৃদ্ধি পাবে 40000 ডলারে, বলেছেন ফান্ডস্ট্রাট গ্লোবাল অ্যাডভাইজরের সহ-প্রতিষ্ঠাতা টম লি, সিএনবিসি-র সঙ্গে একটি সাক্ষাৎকারে। তিনি স্বীকার করেন, করোনা ভাইরাসের উদ্ভব, ভূরাজনৈতিক অস্তিরতা এবং 200-দিন ব্যাপী চলমান গড় হল ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্যবৃদ্ধির কারণ। লি-র মতে, গত বছর প্রথম ক্রিপ্টোকারেন্সির গতিময়তায় হোয়াইট হাউস জোর করে হস্তক্ষেপ করেছিল। কিন্তু এখন মার্কিন সরকার নতুন প্রেসিডেন্ট নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত এবং বিটকয়েনের বিরুদ্ধে কোনো প্রচার সংগঠিত করতে সক্ষম হবে না।
    মর্গ্যান ক্রিক ডিজিটাল ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানির অংশীদার ন্থনি পম্পলিয়ানো ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন মূল ক্রিপ্টোকারেন্সির আরও বৃদ্ধির। তিনি দৃঢ়বিশ্বাসী যে বিটকয়েন বিনিময় হারের বিস্ফোরক বিকাশ ঘটবে সম্পদ এবং এর সীমিত ইস্যুর কারণে, যা একে 2012 সালের শেষে নিয়ে যাবে 100000 ডলারে।
    সাধারণভাবে, বিশ্লেষকদের 60 শতাংশ আশা করেন যে ফেব্রুয়ারি-মার্চে বিটিসি ইউএসডি জোড়া 11000 ডলার মার্ক ভেঙে ফেলবে। যদিও গত সপ্তাহে মাত্র 20 শতাংশ বিশেষজ্ঞ ব্যাখ্যা করেছিলেন, ‘প্রবণতার বৈপরীত্য সম্পর্কে সাবধান!’ এখন তাঁদের সংখ্যা দ্বিগুণ হয়েছে, পৌঁছেছে 40 শতাংশে। কিছু ক্রিপ্টো ট্রেডারের বিশ্বাস যে বিটকয়েন এবং আরও কয়েকটি ক্রিপ্টোকারেন্সির মূল্যে বিকাশ ঘটেছে, জানুয়ারি থেকে, ‘ভৌতিক টাকা’ দ্বারা। যেমন তাঁরা বলেন, কিছু নির্দিষ্ট প্ল্যাটফর্মে, পর্বান্তরে বিশাল অর্ডার দেখা দেয়, যেগুলির ক্রিপ্টোকারেন্সি বা বিক্রয়ের ইচ্ছে নেই, কিন্তু সম্পদের চাহিদা সম্পর্কে একটা বিভ্রান্তি তৈরি করে। কেউ বিনিয়োগকারীদের উস্কানি দেয় তাঁদের সুবিধার জন্য কয়েন কিনতে, সেজন্য এর মূল্য বৃদ্ধি পায়। ‘আপনি ‘ভৌতিক টাকা’র সাহায্যে মূল্য খুব উঁচুতে নিয়ে যেতে পারেন। একটা সময়ে গিয়ে, মানুষ তাদের তাদের উপার্জন ক্যাশ করবে, কিন্তু সম্পদ বিক্রির করার মতো কাউকে খুঁজে পেতে সক্ষম হবে না। এটাই হবে শো!’ – টুইটারে লিখেছেন এক ক্রিপ্টোসেপটিক্স।
    এবং এই পরিস্থিতিতে, ব্রোকারেজ কোম্পানি নর্ডএফএক্স অফার করে ক্রিপ্টোকারেন্সির জন্য সম্ভবত সেরা বিকল্প – কয়েনের প্রকৃত ডেলিভারি ছাড়া মূল্যের ব্যবধানের জন্য এক ধরনের চুক্তি। এক্ষেত্রে, দীর্ঘ বা ছোট অবস্থানে খুললে, আপনি নিশ্চিত হতে পারবেন এমনকি যদি বিটকয়েনের মূল্য আকাশছোঁয়া হয় অথবা বিপরীতভাবে শূন্যতে এসে নামে, আপনি আপনার প্রাপ্য লাভ পাবেন।

 

রোমান বুটকো, নর্ডএফএক্স

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)