ডিসেম্বর 15, 2019

প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনার পর্যালোচনা :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। যেমন প্রত্যাশিত, ফেড এবং ইসিবি উভয়ই তাদের সুদের হার অপরিবর্তিত রেখেছে। ফলত তাদের সিদ্ধান্তে বাজারের প্রতিক্রিয়া প্রায় শূন্য। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ইসিবি-র নতুন প্রধান ক্রিস্টিন লাগার্ডে গত সপ্তাহে ছিলেন ডলারের দিকে।
    মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাঁর অনুসরণকারীদের বলেছেন, ‘আমরা (অর্থাৎ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) চীনের সঙ্গে একটা বড় চুক্তি শেষ করার মুখে। ওরা এটা চায় যেমন আমরাও চাই! অর্থাৎ, যদি আগে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলে থাকেন যে বাণিজ্য চুক্তি একমাত্র বেইজিং চেয়েছিল, এখন এটা দাঁড়িয়েছে যে এতে স্বাক্ষরের জন্য ওয়াশিংটনও সম্মত।
    পরে, ব্লুমবার্গ রিপোর্ট করেছে যে ট্রাম্প, 15 ডিসেম্বর ট্যারিফ বৃদ্ধি এড়াতে, ইতিমধ্যে একটি অন্তর্বর্তী চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছেন, যাতে, নতুন শুল্ক রদের সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের চীনা আমদানির বর্তমান ট্যারিফ হার হ্রাসের ব্যবস্থা আছে।
    ডলারের দ্বিতীয় চালক হলেন ক্রিস্টিন লাগার্ডে, যিনি রিপোর্ট করেছেন যে ইসিবি, যদিও এটা সামান্য সমঝোতা করেছে জিডিপি এবং 2020-র জন্য মুদ্রাস্ফীতির অনুমানে, সাধারণভাবে এর আর্থিক নীতির বর্তমান মাপকাঠিতে বলপ্রয়োগ করেছেন।
    এই দুই নেতাকে ধন্যবাদ, এই সপ্তাহের ফলাফল ইউরোপিয়ান কারেন্সির জন্য ভয়ংকর বিপর্যয় নিয়ে আসতে পারে, যদি যুক্তরাজ্যের সংসদের নির্বাচনের ফলাফলের জন্য না হয়। কনজারভেটিভ পার্টির জয় পাউন্ডকে দ্রুত উঠিয়েছে, এবং এর প্রেক্ষিতে ইউরো উঠেছে। এর সর্বোচ্চ ফলাফল হতে পারে, ইউরো/মার্কিন ডলার জোড়া উঠেছিল শক্তিশালী মাঝারি-মেয়াদের সাপোর্ট-রেজিস্ট্যান্স জোন পর্যন্ত মোটামুটি 1.1200। যদিও তখন শক্তির ভারসাম্য প্রায় ফিরে এসেছিল এবং এই জোড়া শেষ করে 1.116-এ।
  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। স্বাভাবিকভাবেই, নির্বাচনের ফলাফলের পর, ব্যবধান শুধু ইউরোতেই দেখা যায়নি, বরং প্রথমে দেখা গেছে পাউন্ডে। বর্তমান ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন নেতৃত্বাধীন কনজারভেটিভ পার্টি পার্লামেন্টের অধিকাংশ আসনে জয়ী হয়েছে, যা আশা দিয়েছে যে ব্রেক্সিট নিয়ে কয়েক বছরের বিভ্রান্তি অবশেষে শেষ হবে, এবং 31 জানুয়ারি 2020-এ ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে আসার প্রক্রিয়া শেষ হবে।
    নির্বাচনের এরকম ফলাফল, সাধারণভাবে, বাজারে প্রভাব ফেলেছে। সুতরাং, জিবিপি মার্কিন ডলার জোড়া প্রায় 500 পয়েন্ট বেড়েছে এবং বৃদ্ধি হয়েছে 1.3500-এর স্তরের ওপর, অনেক প্লেয়ার দীর্ঘ অবস্থান শেষ করতে শুরু করেছে, যা হয়েছে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের উপরে উল্লেখিত পদক্ষেপ দ্বারা। এর ফলে, বাণিজ্যিক সেশনের শেষে ব্রিটিশ কারেন্সি প্রায় 180 পয়েন্ট হারিয়েছে, শেষ করেছে 1.3340-তে।
  • ইউএসডি/জেপিওয়াই। যখন ইউরোপিয়ান ও ব্রিটিশ কারেন্সি ডলারের বিপরীতে উঠেছিল, অন্যদিকে ইয়েন নেমেছিল। গত সপ্তাহে বিশেষজ্ঞদের অধিকাংশই ভোট দিয়েছিলেন এই জোড়া 109.75 উচ্চতায় উঠবে বলে এবং সেই অনুমান ছিল 100 শতাংশ নির্ভুল।
    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীন একটি বাণিজ্য চুক্তি স্বাক্ষর করার পথে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র স্টক এক্সচেঞ্জ 12 ডিসেম্বর, বৃহস্পতিবার ঐতিহাসিক উচ্চতা আপডেট করেছে। বিনিয়োগকারীর স্বার্থ ফের একবার এমন ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদ হয়েছে উদাহরণ স্বরূপ, স্টক ইনডেক্স ভবিষ্যৎ, যার ফল জাপানি কারেন্সির বিক্রি, যা সর্বোচ্চ হারিয়েছিল 130 পয়েন্ট। সপ্তাহের চূড়ান্ত সুতো ছিল 109.35 স্তরের।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। গত সপ্তাহের শেষে ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্স ছিল এর নীচের তৃতীয় স্থানে, 29-এ, যা বিনিয়োগকারীদের হালকা ঝুঁকি সম্পর্কিত। বাজার যেরকম ব্যবহার করেছে : গোটা সপ্তাহে 7.700 যার সঙ্গে বিয়ারের প্রাধান্য ছিল, যা এই চ্যানেলের নীচের সীমান্তকে ক্রমশ চাপ দিয়েছে। সাতদিনে, বিটকয়েন হারিয়েছে প্রায় 4.5 শতাংশ। একই ডায়নামিক্স দেখা গেছে শীর্ষ অল্টকয়েনে, যেমন রিপল (এক্সআরপি/ ইউএসডি), ইথেরিয়াম (ইটিএইচ/ইউএসডি) ও লাইটকয়েন (এলটিসি/ইউএসডি)-এ, যা সাধারণত ক্রিপ্টোকারেন্সির গতিবিধি পুনরাবৃত্ত করে।

 

আগামী সপ্তাহের অনুমানের ক্ষেত্রে, টেকনিক্যাল ও গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ওপর বেশ কয়েকজন বিশেষজ্ঞের অনুমানের সংক্ষেপের ভিত্তিতে, আমরা বলতে পারি :

  • ইউরো/মার্কিন ডলার। একঝলকে, আগামী সপ্তাহে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা আমাদের সামনে রয়েছে। জার্মানি ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের পিএমআই মার্কিটের প্রকাশ সোমবার 16 ডিসেম্বর, বুধবার ইসিবি প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টিন লাগার্ডের ভাষণ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বার্ষিক জিডিপি ডেটা প্রকাশ পাবে শুক্রবার 20 ডিসেম্বর। যদিও হার বৃদ্ধি পুনরাবৃত্তির জন্য অপেক্ষা বাহুল্য মাত্র, যেমন গত সপ্তাহে যুক্তরাজ্যের নির্বাচন দ্বারা হয়েছিল। কয়েকজন বিশেষজ্ঞের বিশ্বাস যে এই জোড়াকে চাপে পড়বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বাণিজ্য আলোচনার সাফল্য দ্বারা। উলটোদিকে, অন্যরা আশা করেন যে এই জোড়াটি ধারাবাহিকভাবে উপরে উঠতে থাকবে কিছু সময়ের জন্য ইনার্শিয়া দ্বারা।
    এটা অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে অসিলেটর এবং ডি1-এর ট্রেন্ড ইন্ডিকেটরের 85 শতাংশ এখনও সবুজ রঙে রাঙানো। বিশেষজ্ঞদের 85 শতাংশ এখনও অপেক্ষা করছেন অদূর ভবিষ্যতে এই জোড়ার ধারাবাহিক বিকাশের জন্য। যদিও এই বিকাশ, তাঁদের মতে, হবে তাৎপর্যহীন। জোড়াটি আবার 1.1200 রেজিস্ট্যান্সে ভাঙার চেষ্টা করবে এবং ব্যাকলাশ বিবেচনা করে এটা উঠতে পারে 1.1225-1.1235-এর জোনে। পরের রেজিস্ট্যান্স হল 1.1255। যদিও, এর পরে এটি মুখোমুখি হবে উলটো গতির এবং ফিরে আসবে 1.1000-1.1100 জোনে। এই পরিস্থিতির প্রণয়ন হতে লাগবে এক থেকে তিন সপ্তাহ, এবং বিশ্লেষণ এবং ডি1-এ গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের 65 শতাংশ এর সঙ্গে সম্পূর্ণ সহমত :

  • জিবিপি/মার্কিন ডলার। পরের পাঁচদিনে, যুক্তরাজ্যের ম্যাক্রোইকোনমিক্স পরিসংখ্যান আমাদের সামনে নামবে প্রাচুর্যের ভাণ্ডারের মতো। সোমবারে, এটা মার্কিট সার্ভিসেস পিএমআই, মঙ্গলবারে এটা আইএলও বেকারত্ব হার, বুধবার – কনজিউমার প্রাইসেস ইনডেক্স, বৃহস্পতিবার – ব্যাংক অব ইংল্যান্ডের সুদের হারের সিদ্ধান্ত এবং আর্থিক নীতি রিপোর্ট, শুক্রবারে এটা তৃতীয় ত্রৈমাসিকের জিডিপি ডেটা। অর্থাৎ খবর ছাড়া একটি দিনও থাকবে না। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, বাজার অপেক্ষা করবে বিস্তৃতির জন্য যা প্রধানমন্ত্রী বরিস জন বলবে এবং ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া প্রবর্তন সাপেক্ষে কাজ করবে। স্মরণীয় যে তাঁর কাছে পার্লামেন্টে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন চুক্তি পরিমার্জনের জন্য আছে 31 জানুয়ারি 2020 পর্যন্ত সময়।
    এর মধ্যে, পাউন্ড সম্পর্কে বিশেষজ্ঞদের অনুমান ইউরোর মতোই। তাঁদের অধিকাংশই (65 শতাংশ), ডি1-এ 90 শতাংশ ইন্ডিকেটর সমর্থন করেছেন, তাঁদের বিশ্বাস যে এই জোড়া ফের একবার ঝড়ের মতো 1.3500 উচ্চতায় পৌঁছবে, যেখানে এটি পৌঁছেছিল বৃহস্পতিবার 12 ডিসেম্বর থেকে শুক্রবার 13 ডিসেম্বরে। যদিও মাত্র 25 শতাংশ এরকম ঝড়ের সাফল্যে বিশ্বাস করেন। বিশ্লেষকদের বাকি 75 শতাংশ, গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণ সমর্থন করেন, তাঁদের বিশ্বাস যে আমরা অতি দ্রুত দেখব জিবিপি/মার্কিন ডলার জোড়াকে ফের একবার 1.3100-1.3200 জোনে। এবং, প্রকৃতপক্ষে, কেন না? ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ছেড়ে এলে যুক্তরাজ্যের জন্য কী মঙ্গল অপেক্ষা করছে? সেটাই হল প্রশ্ন।
  • ইউএসডি জেপিওয়াই। বিশ্লেষকদের 75 শতাংশের বিশ্বাস যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-চীনের বাণিজ্য আলোচনার বিকাশ এই জোড়াকে ধারাবাহিকভাবে উপরে তুলবে। অতিরিক্ত সমর্থনের ব্যবস্থা করবে ঋণ-বাজারে 10 বছরের মার্কিন ও জাপান সরকারের বন্ধনের ফলাফলের বিকাশ। অসিলেটরের 85 শতাংশ, ট্রেন্ড ইন্ডিকেটর এবং ডি1-এ গ্রাফিক্যাল বিশ্লেষণের 95 শতাংশ এই অনুমানের সঙ্গে সহমত। নিকটবর্তী রেজিস্ট্যান্স হল ১০৯.৭০, লক্ষ্য হল 110.00-111.00 জোনে জমাট বাঁধা।
    বাকি 25 শতাংশ বিশ্লেষকের বিশ্বাস এই জোড়া যেতে পারবে না 108.40-109.70 করিডোর ওপারে, যেখানে এটি থাকবে অন্তত এই বছরের শেষ পর্যন্ত। এই প্রবণতার সম্ভাব্য বিপরীত ঝোঁক এবং জোড়ার 108.40-র সাপোর্টে ফিরে আসারও ইঙ্গিত দিয়েছেন অসিলেটরের 15 শতাংশ যা পরিষ্কার ইঙ্গিত দেয় যে জোড়াটি অতিরিক্ত ক্রীত। পরের সাপোর্ট হল 108.25।
  • ক্রিপ্টোকারেন্সি। ক্রিপ্টো ফিয়ার ও গ্রিড ইনডেক্স এখনও এর নিম্ন তৃতীয়তে রয়েছে এবং এমনকি এটি গত সপ্তাহের থেকে এক-চতুর্থাংশ নেমেছে, 22 মার্ক পতন। সাধারণভাবে, বর্তমান পরিস্থিতিকে বদ্ধ বলা যেতে পারে। কিন্তু ক্রিপ্টো মার্কেট বিখ্যাত হল এই তথ্যের জন্য যে দীর্ঘ বদ্ধাবস্থার পর দ্রুত আরোহণ ঘটে। অথবা পতন ঘটে। মূল কথা হল, অধিকাংশ ট্রেডারই এখানে এসেছে ক্রিপ্টোকারেন্সির দ্রুত গতিশীলতায় আয় করতে।
    অনুমানকারীদের কাছে এটা কোনো ব্যাপারই নয় যে মার্কেন গতিশীল কিংবা বদ্ধ। তবু, মূল্য পতন সত্ত্বেও, সম্প্রতি বিটকয়েন নেটওয়ার্ক সম্প্রসারিত হচ্ছে এবং এখন পৌঁছেছে রেকর্ড 28.4 মিলিয়ন ঠিকানায়। এটা কয়েনমেট্রিক্স ডেটা সার্ভিস তথ্য দ্বারা প্রমাণিত। এইরকম ডায়নামিক্স দেখা গিয়েছিল গত বছরের শেষে, যখন বিটকয়েন ট্রেডিং হচ্ছিল 3.200 ডলারে। সেই সময়ে, অনেক বিনিয়োগকারী, ক্রিপ্টোকারেন্সি পতনের সুবিধা নিয়েছিলেন, সক্রিয়ভাবে এটা কিনতে শুরু করেন।
    সার্ভিস গ্লাসনোড অনুযায়ী, হাজার বা তার বেশি বিটকয়েনের ওয়ালেট নতুন উচ্চতায় পৌঁছেছে, এদের মালিকরা আশা করছে আয় করবে, প্রাথমিকভাবে অর্ধেক ফলাফলের জন্য, যার সূচি নির্ধারিত মে 2020-এ।
    মর্গ্যান ক্রিক ডিজিটাল সহ-প্রতিষ্ঠাতা অ্যান্থনি পম্পলিয়ানোর মতানুযায়ী, এই ঘটনা বিটকয়েনের মূল্য দ্বিগুণ করতে পারে, কিন্তু এর বিকাশ হবে ক্রমান্বয়ে। ‘আমি মনে করি না যে অর্ধেকের পর দিনের মূল্য বাড়বে, কিন্তু আমার বিশ্বাস যে, বর্তমান মূল্য থেকে শুরু করে এটা ডিসেম্বর 2012-এর মধ্যে 100,000 ডলারে উঠবে।’
    অর্ধেক ফলাফল স্মরণ করে, বিটকয়েন নেটওয়ার্কের রিওয়ার্ডের আকার দ্বিগুণ হ্রাস পাবে ব্লক পিছু 12.5 থেকে 6.25 কয়েনে। কিন্তু এসবই ঘটবে পাঁচ মাসে, যদি আমরা অনতিভবিষ্যৎ সম্পর্কে কথা বলি, বিশেষজ্ঞদের 65 শতাংশ আশা করেন বিটিসি /ইউএসডি জোড়া হ্রাস পাবে 6500-6800 ডলার জোনে। বাকি 35 শতাংশ বিশেষজ্ঞের মতানুযায়ী, এই জোড়া উঠবে 8000 ডলার স্তরের উপরে।

 

রোমান বুটকো, নর্ডএফএক্স

 

বিজ্ঞপ্তি : এসব তথ্য আর্থিক বাজারে কাজের জন্য বিনিয়োগ বা পরামর্শ হিসেবে কোনো সুপারিশ নয় : এগুলি একমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এর ফলে ডিপোজিটকৃত ফান্ডের পরিপূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)