জুন 15, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। জার্মাণীর অর্থনৈতিক মন্ত্রালয় অগ্রগণ্য ইইউ অর্থনৈতিক অবস্থার পরিস্থিতিকে এক সার্বজনীন বিষাদকর মনোভাবের পূর্বাভাস জারি করেছে। ইউরোজোন অর্থনীতির সার্বিক বৃদ্ধি ধীর হয়েছে মন্তব্য করে  আইএমএফ-এর (IMF) প্রধান, ক্রিস্টিন ল্যাগার্ডের বিবৃতি বিনিয়োগকারীদের কোনভাবেই উৎসাহিত করতে পারে নি। এমন কি অগ্রণী দেশগুলির ইউরো মুদ্রার সার্বজনীন সঞ্চয় বৃদ্ধির বিষয়ে তথ্যও ইউরোপীয়ান মু্দ্রাকে সাহায্য করতে পারে নি। বর্তমানে এই অংশের পরিমাণ হল 20.7%, এবং এটি ডলারের 61.7% অংশের পরিমাণের থেকে অনেক কম। এই বাজার ইসিবির বাজার থেকে সরকারী বণ্ড ক্রয়ের (QE) সম্ভাব্য পুনরজ্জীবনের বিষয়টি ভোলে নি।
    সাধারণভাবে বলতে গেলে, এই সপ্তাহটি ইউরোর অনুকূলে কাজ করে নি, এবং যেমন বেশীরভাগ বিশেষজ্ঞরা (60%) ধারণা করেছিলেন, এই মুদ্রাজুড়ি পাঁচ-দিনের সপ্তাহের শুরু থেকেই 1.1200-1.1215-এর সহায়ক স্তরে সমর্থন করার জন্য ঘুরে গিয়েছিল। তবে, লেনদেনের সপ্তাহের একদম শেষে এটি তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছিল, অর্থাৎ, শুক্রবার, 14ই জুনে; সুতরাং, এই অঞ্চলের নীচে কোন বিরাট সাফল্য দেখা যায় নি।
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। ব্রিটিশ মুদ্রার মালিকরাও এই খবরে সুখী হন নি। এবং আবারও, সবার উপরে ব্রেক্সিটর খবরটিই প্রাধান্য পেয়েছিল। এটার খুবই সম্ভাবনা রয়েছে যে বরিস জনসন গ্রেট ব্রিটেনের কনজার্ভেটিভ পার্টির প্রধান হবেন, এবং সেই অনুযায়ী, তিনিই দেশের প্রধানমন্ত্রী হবেন। প্রথম রাউণ্ডের শেষে তিনি 114জন আইন-প্রণেতাদের সমর্থন পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী, বিদেশমন্ত্রী, জেরেমি হান্ট মাত্র 43টি ভোট পেয়েছেন। এর ফলে পাউণ্ডের কোন ভালো পূর্বাভাস করা যায় না, যেহেতু জনসন মনে করেন যে পূর্বে থেরেসা মে ইউরোপীয়ান নেতৃত্বের সাথে যেই চুক্তিতে সম্মত হয়েছিলেন, তার পুর্নবিবেচনা করার প্রয়োজন আছে। এবং এতে রাজনৈতিক ঝুঁকি স্পষ্ট বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং ব্রিটিশ বাজার থেকে বিনিয়োগকারীদের সরে যাওয়ারও আরেকটি কারণ বলা হচ্ছে। এর ফলে, গত পাঁচ দিনে এই মুদ্রাজুড়ির প্রায় 150 পয়েন্টের পতন হয়েছে এবং এই সপ্তাহের শেষে 1.2585-এ এসে থেমেছে;      
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। মনে করুন তো গত সপ্তাহে 40% বিশ্লেষক উত্তরদিশার প্রতি ঘুরে গিয়েছিলেন, 40% দক্ষিণদিশায় এবং বাকি 20% পূর্বদিশায়। তেজিবাজার এবং মন্দাবাজারের এই সমান অবস্থা এই মুদ্রাজুড়ির চার্টেও প্রভাব ফেলেছিল, যা সারা সপ্তাহ ধরে 108.15-108.80-এর সংকীর্ণ পরিসরে স্থিত ছিল, এবং সপ্তাহটি 108.55-এর স্তরে শেষ করেছিল;    
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। 14ই জুনে, আমেরিকার রাষ্ট্রপতি নিজের 73তম জন্মদিন পালন করলেন। এর কয়েকদিন পূর্বেই  জানানো হয়েছিল যে গুগল ব্যবহারকারীদের কাছে Bitcoin-এর বিষয়ে আরো তথ্য সন্ধানের প্রবণতা বৃদ্ধি পাচ্ছে, ডোনাল়্ ট্রাম্পের বিষয়ে নয়। আরেকটি খবরও আছে যা মূল ক্রিপ্টোমুদ্রার জনপ্রিয়তার সাক্ষ্য দিচ্ছে। এটি প্রমাণিত হয়েছে যে 60% BTC মুদ্রার গত এক বছরে কোন হাতবদল হয় নি, যা এই সম্পদের উপরে বিনিয়োগকারীদের গভীর আগ্রহের বিষয়টি সূচিত করে।
    এটি এই সত্য দ্বারা নিশ্চিত হচ্ছে যে 10ই জুন থেকে, Bitcoin-র স্থিরভাবে উত্থান হচ্ছে, এবং আবারও একবার 31শে মে-র 9,100$-এর উচ্চতার দিকে এগোচ্ছে। শুক্রবার, 14ই জুনের সন্ধ্যায়, এই ক্রিপ্টোজুড়ি 8,700$-এর উচ্চতায় উঠতে পেরেছিল, যা হল পাঁচ-দিনে এই ক্রিপ্টোমুদ্রার মূল্যের প্রায় 15% বৃদ্ধি।
    Litecoin (LTC/USD)-ও ভালো লেনদেন জারি রাখতে পেরেছিল, এবং 143.6$-এর সর্বোচ্চ অবস্থানে এসেছিল। Ethereum (ETH/USD) গত দুই সপ্তাহে কোন বৃদ্ধি দেখাতে পারে নি, কিন্তু Ripple-এর দর স্থিরভাবে নীচের দিকে নামছে এবং একই সময়ে প্রায় 10% দর খুঁইয়েছে।

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। মধ্যপ্রাচ্যে আবারও একবার আরেকটি যুদ্ধের গন্ধ শোনা যাচ্ছে। 13ই জুনে, উপকূলেরে ইউনাইটেড আরব এমিরেটসের দুটি ট্যাঙ্কারে আগুন ধরে গিয়েছিল। ইউএস-এর স্টেট ডিপার্টমেন্ট ইরাণ তেলের জাহাজে টর্পেডো আক্রমণ করেছে বলে অভিযুক্ত করেছে। ইরাণ সমস্ত অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও, তেলের মূল্যতে আগুন লাগতে শুরু করেছে।
    শীতল বাণিজ্য যুদ্ধও কমে নি। আমেরিকা চীনের সাথে যুদ্ধে জয়ী হবে আত্মবিশ্বাসী রয়েছে এবং যদি জি জিনপিং জাপানের ওসাকায় ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে বৈঠক না করেন, সমস্ত চীনা আমদানির উপরে শুল্কের হার বিস্তৃত কর হবে বলে হুঁমকি দিয়েছে। এর উত্তরে, চীনের বাণিজ্য মন্ত্রালয় ঘোষণা করেছে যে তারা “শেষ দেখে ছাডবে”, এবং ঘরোয়া ব্যবহারকে অগ্রাধিকার দেবে বলে জানিয়ে দিয়েছে। আমেরিকা ইইউকে নতুন শুল্ক চাপানোর হুঁমকিও দিয়েছে।
    বর্তমানে, আসন্ন ঘটনাগুলি নিয়ে আলোচনা করা যাক। যদি গত সপ্তাহটি মুদ্রাস্ফীতির বিষয়ে নিবেদিত করা হয়ে থাকে, আসন্ন সপ্তাহটি সুদের হারের সপ্তাহ হবে বলা যায়। ইউএস ফেডারেল রিজার্ভের সুদের হারের বিষয়ে সিদ্ধান্ত বুধবার, 19শে জুনে জানা যাবে, এবং ব্যাংকস্ অফ্ জাপান এবং ইংল্যাণ্ড বৃহস্পতিবারে হারের বিষয়ে তাদের সিদ্ধান্তের কথা জানাবে। তবে, প্রথম, বা দ্বিতীয় বা শেষের ঘোষণায় আপনারা দারুণ কিছু আশা করবেন না, সমস্ত হারের অপরিবর্তিত থাকার সম্ভাবনা খুবই বেশী। বরং আগ্রহের বিষয় হবে সেগুলির সাথে থাকা মন্তব্যগুলি, যা বৃহৎ-নিয়ন্ত্রকদের আর্থিক নীতির বিষয়ে এক সুস্পষ্ট নির্দেশিকা দিতে পারে। ওয়াল স্ট্রীট জার্নালের বিশেষজ্ঞদের মতে, 2011 সালের পর থেকে আমেরিকার সর্বোচ্চ মন্দাবাজারের সম্ভাবনা হল এখনকার পরিস্থিতি, এবং তাই তাদের 70% বিশেষজ্ঞরা জুলাই-সেপ্টেম্বরের প্রথমদিকে ডলারের হারের পতনের আশঙ্কা করছেন।
    ইতিমধ্যে, 65% বিশ্লেষকরা আশা করছেন যে এই মুদ্রাজুড়ি ঘুরে দাড়াবে। ইউএই-র (UAE) উপকূলে সংঘর্ষের সাথে জড়িত তেলের মূল্যের বৃদ্ধিতে ইউরোর সুবিধা হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। তেজিবাজারের লক্ষ্য হল 1.1350-এর স্তরে ফিরে আসা, পরের লক্ষ্যমাত্রা হল 1.1420-1.1450-এর অঞ্চল।
    মাত্র 35% বিশেষজ্ঞ মন্দাবাজারের পক্ষে রয়েছেন। লক্ষ্যমাত্রা হল 1.1200-1.1215-এর অঞ্চলের সহায়ক স্তর ভেঙ্গে ফেলা এবং 1.1100-এর দিগন্তে পৌঁছানো। H4 এবং D1-তে 90%-এর বেশী প্রবণতা নির্দেশক এই মুদ্রাজুড়ির পতনের পক্ষে রয়েছে। দোদুল্যমান সূচকের কথা বলতে গেলে, এই ছবিটা সম্পূর্ণ বিপরীত। তাদের 70% অংশ H4-তে লাল রং দেখাচ্ছে, এবং 30% ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে। এক-তৃতীয়াংশ দোদুল্যমান সূচক D1-তে লাল রং দেখাচ্ছে, এক-তৃতীয়াংশ সবুজ, এবং অপর তৃতীয়াংশ নিরপেক্ষ ধূসর রং দেখাচ্ছে; 
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। যদি আমরা বৃহৎ-অর্থনৈতিক নির্দেশকদের কথা বলি, ইতিমধ্যে উল্লেখিত সুদের হারের সিদ্ধান্তে ছাড়াও, আমরা সোমবারে ব্যাংক অফ্ ইংল্যান্ডের মুদ্রাস্ফীতির রিপোর্ট এবং বুধবারে উপভোক্তা মূল্যসূচকের রিপোর্ট আশা করছি, যা আশঙ্কা করা হচ্ছে পাউণ্ডের বিরুদ্ধে যাবে। তবে, এগুলির মুদ্রাস্ফীতি শক্তিশালী হবে না এবং স্বল্পকালীন হবে।
    ব্রেক্সিট এই মুদ্রাজুড়ির আচরণের এখনও মূল বিষয় হয়ে রয়েছে। বাজার মেনেই নিয়েছে যে বরিস জনসন ইউকে-র প্রধানমন্ত্রীর পদ নিতে যাচ্ছেন। এখন প্রশ্ন হল কিভাবে ইইউ শূন্য থেকে ব্রিটেনের শুরু করার প্রচেষ্টায় সাড়া দেবে। এবং এখানে আবার, কোন স্পষ্টতা নেই। এই কারণে বিশেষজ্ঞরা সমান দুভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন, এক-তৃতীয়াংশ এই মুদ্রাজুড়ির উত্থানের পূর্বাভাস দিচ্ছেন, এক-তৃতীয়াংশ এর পতন এবং এক-তৃতীয়াংশ সমস্ত পূর্বাভাস থেকে এককথায় দূরে রয়েছেন।
    নির্দেশকদের কথা বলতে  গেলে, সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ দক্ষিণদিশার প্রতি ইঙ্গিত করছে, কিন্তু H4 এবং D1-তে প্রায় 10% দোদুল্যমান সূচক ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে;  
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। এখানেও ছবিটা স্পষ্ট নয়। বিশেষজ্ঞরা প্রায় সর্বসম্মতিক্রমে ঝুঁকি-বিহীন মনোভাব বৃদ্ধির কথা বলছেন। এটি সত্য যে বহু দেশের ইউএস ডলারে বিদেশী মুদ্রার সঞ্চয়ে রেকর্ড পরিমাণে কমে গিয়েছে। এটি সত্য যে বিভিন্ন দেশের তাদের পরিসম্পদ নিরাপদ স্বর্গ অর্থাৎ ইয়েনে রাখা জারি রয়েছে। এটিও সত্য যে আমেরিকায় 10 এবং 30-বছরের ট্রেজারী বন্ডগুলির সাম্প্রতিক নীলাম তাদের লাভজনকতা হ্রাস করেছে এবং ইয়েনের জন্য দারুণ চাহিদা তৈরী হয়েছে। এরকম পরিস্থিতিতে, মনে হয় যে জাপানী মুদ্রার হার আকাশ ছুঁবে। কিন্তু ইয়েন....এখনও সংকীর্ণ চ্যানেলেই ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং দ্বিতীয় সপ্তাহেও 100 পয়েন্ট অতিক্রম করতে পারে নি।
    তবে, 80% বিশেষজ্ঞরা ভবিষ্যতের বিষয়ে আশাবাদী, এই আশায় যে প্রথমে এই মুদ্রাজুড়ির 107.80-এর স্তরে পতন হবে, আর তারপরে আরো 80-100 পয়েন্ট নীচে নামতে পারে। রৈখিক বিশ্লেষণ এবং D1-তে 70% প্রবণতা নির্দেশকরা এই পূর্বাভাসের সাথে সহমত হয়েছে। 20% বিশেষজ্ঞ দ্বারা এক বিকল্প পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। প্রতিরোধক স্তর হল 108.85-109.00, 109.70-109.90 এবং 110.65-110.90;

  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। যদি Bitcoin 9,100$-এর স্তরে গিয়ে  31শে মে-র উচ্চতায় পৌঁছাতে পারে, আর তারপরে আরো স্থিরভাবে বৃদ্ধি জারি রাখে, আমরা বলতে পারি যে জুনের প্রথম কয়েকদিনের পতন হল একটি সংশোধন মাত্র। তেজিবাজারের লক্ষ্যমাত্রা হল প্রতি মুদ্রায় 10,000$-এর প্রতীকমূলক উচ্চতায় পৌঁছানো। বাকি 30% বিশেষজ্ঞরা বেশী হতাশাবাদী এবং মনে করেন যে আমরা শীঘ্রই BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়িকে 7,500–8,000$-এর অঞ্চলে দেখতে পাব।

 

-রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের সম্পূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)