জুন 1, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প আরেকবার বাজারকে নাড়াচাড়া দেবার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এখনকার মত চীনা সমস্যাকে সরিয়ে রেখে তিনি মেক্সিকোর প্রতি নজর দিয়েছেন। যেহেতু তিনি সেই দেশের সীমানায় কোন প্রাচীর গড়তে ব্যর্থ হয়েছেন, অবৈধ অভিবাসী প্রবাহ বন্ধ করার জন্য ইউএস রাষ্ট্রপতি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন যে তিনি মেক্সিকোকে ডলার দিয়ে শাস্তি দেবেন, এবং মেক্সিকোর তৈরী সামগ্রী উপর শুল্ক বাড়িয়ে দিয়েছেন। শুরু যবে থেকে হচ্ছে এবং বাড়ানোর পরিমাণঃ জুলাইয়ে 10% পর্যন্ত বৃদ্ধি হবে, আগস্টে 15% পর্যন্ত বৃদ্ধি, সেপ্টেম্বরে 20% পর্যন্ত বৃদ্ধি, এবং অক্টোবরে 25% পর্যন্ত বৃদ্ধি।
    এটি বলা যেতে পারে যে এরকম শক্তির প্রদর্শনে দুটি লক্ষ্য পূরণ হয়ঃ মেক্সিকো শহরকে শাস্তি দেওয়া ছাড়াও, তিনি বেজিংকে ভয় দেখিয়ে চমকাতে চানঃ দেখ আমরা অবাধ্যদের কিভাবে শায়েস্তা করি! অবশ্যই চীন মেক্সিকো নয়, এখানে সবকিছুই আরো বেশী গোলমেলে, কিন্তু যাই হোক না কেন, ডলারের উত্থান হচ্ছে। ইউরোপীয়ান পার্লামেন্টের নির্বাচন ডলারের পক্ষেই গেছে। এর ফলে, এই মুদ্রাজুড়ি বৃহস্পতিবার, 30শে মে-তে 1.1167-এর স্তরে স্থানীয় নিম্ন অবস্থানের রেকর্ড করেছে, এবং মে-র শেষে 1.1167-এ মাসিক মূল বিন্দুর কাছাকাছি পৌঁছিয়েছে। এইভাবে, ইউরো ডলারের তুলনায় প্রথম পাঁচ মাসে প্রায় 350 পয়েন্ট দুর্বল হয়ে পড়েছে।
    এটি মনে করানো যুক্তিযুক্ত যে এক বছর আগে ঠিক এই সময়ে, ইউরোপীয়ান মুদ্রার প্রায় 2.5 গুণ পতন হয়েছিল, ঠিক দেড় মাসের মাথায় প্রায় 900 পয়েন্ট খুঁইয়েছিল। তাই, ট্রেডার এবং ব্রোকার উভয়েরই এই কম দোলাচলের বিষয়ে অভিযোগ থাকার কারণ আছে।
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-র পদত্যাগের বিবৃতি এবং ব্রেক্সিট সমর্থকদের ইউরোপীয়ান পার্লামেন্টে সাফল্যের কারণে পাউণ্ডের উপর চাপ বজায় রয়েছে। মনে করুন তো যে 65% বিশেষজ্ঞ, 90% দোদুল্যমান দোলক এবং প্রবণতা নির্দেশকদের সমর্থনে, এই মুদ্রাজুড়ির আরো পতনের পক্ষে বলেছিলেন। আর ঠিক তাই ঘটেছে। এই মুদ্রাজুড়ি যে কেবলমাত্র নীচে নেমে গিয়েছিল তাই নয়, 2019 সালের বসন্তের নিম্ন অবস্থানের থেকেও পতন হয়ে 1.2557-এর দিগন্তে পৌঁছিয়েছিল, তারপরে সজোরে ঘুরে দাড়িয়েছিল, এবং চূড়ান্ত দর 1.2630-এ থেমে গিয়েছিল;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। মানসিক চাপ বৃদ্ধির অনিবার্য ফল হল ঝুঁকি-বিরোধী মনোভাবের বৃদ্ধি। মেক্সিকোর প্রতি ট্রাম্পের মনোভাবের প্রতিফলনে প্রায় সমস্ত বাজারের পরিসম্পদের পতনের কারণ ঘটেছিল, প্রথমে তেলের মূল্য। এবং বিনিয়োগকারীরা আবারও একবার নিরাপদ স্বর্গ হিসাবে পরিচিত জাপানী ইয়েনের দিকে নজর ফিরিয়েছে, যেখানে তারা পরবর্তী অর্থনৈতিক ঝড়ের জন্য অপেক্ষা করতে পারেন।
    এর ফলে, ইউরো এবং পাউণ্ডের যেগুলির ডলারের তুলনায় পতন হয়েছে, সেগুলির মত না হয়ে ইয়েন কিন্তু পক্ষান্তরে, শক্তিশালী হয়ে শুক্রবার, 31শে মে-তে 108.30-এ পৌঁছিয়েছে, যেখানে এটি গ্রীষ্মকালে পৌঁছিয়েছিল যেই পূর্বাভাস 75% বিশ্লেষক, 85% দোদুল্যমান সূচক এবং 100% প্রবণতা নির্দেশক দ্বারা পুরোপুরি নিশ্চিত করা গিয়েছে;
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। পরপর তিন সপ্তাহ ধরে, Bitcoin গোয়ার্তুমিভাবে 10,000$-এর নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রায় অগ্রসর হয়ে “এক পদক্ষেপ এগোন, অর্ধেক পদক্ষেপ পিছোন” প্রকল্প অনুসারে এগিয়ে চলেছে। তাই, 7,880$-এর দিগন্তে লড়াই করে BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ি 26শে মে রবিবারের সন্ধ্যা থেকে উর্ধ্বমুখী হয়ে সোমবার 8,955$-এ পৌঁছিয়েছিল। তারপরে 5.5% সংশোধন হয়েছিল, এবং আরো একবার উর্ধ্বে গমন, যার ফলে এটিকে 9,100$-এর উচ্চতায় দেখা গিয়েছিল। তবে, এটি 9,000$-এর উপরে পা রাখতে ব্যর্থ হয়েছিল, তেজিবাজারের লেনদেনকারীরা তাদের লাভ কুড়োতে লাগলেন, এবং Bitcoin 8.510$-এ বসন্তকে বিদায় জানিয়েছিল, আর এই তিন মাসে এটির 120%-এর বেশী উত্থান হয়েছিল।
    ETH/USD, LTC/USD এবং XRP/USD-এর কথা বলতে গেলে, এবং Ethereum ও Litecoin তৎসহ Ripple উল্লেখ ক্রিপ্টোমুদ্রাকে অনুসরণ করে চালু সপ্তাহের শেষে মধ্য-মে-র দরে ফিরে এসেছিল।

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। ইউএস রাষ্ট্রপতি ট্রাম্প ছাড়াও, এই মুদ্রাজুড়ির মূল চালিকাশক্তি হল ইউএস ফেডারেল রিজার্ভ এবং ইসিবি। মনে করুন তো ইউরোপীয়ান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বর্তমান প্রধান, মারিও দ্রাঘি 31শে অক্টোবর তার আসন ছাড়ছেন। তার চেয়ারের মূল প্রতিযোগী হলেন জেনস ওয়েডম্যান, যিনি এক শক্তিশালী ইউরোর সমর্থক হিসাবে সুদের হারের বৃদ্ধিকে সক্রিয়ভাবে সমর্থন করেন। পক্ষান্তরে ফেড-এর প্রতিনিধিরা, ইউএস জিডিপি-র সম্ভাব্য ধীরগতির জন্য ডলারের হারের হ্রাস পাবার সম্ভাবনার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন। এরকম এক পরিস্থিতিতে ইউরোর পক্ষে যাওয়া উচিত হবে বলে অনুমান করা যায়। তবে, ব্লুমবার্গ-এর মতে, ইসিবি 2020-এর এপ্রিলের আগে দরের বৃদ্ধি করতে যাচ্ছে না, এবং এইসময়ে অনেক কিছু পরিবর্তন হতে পারে। এছাড়াও, ইউরোজোনের রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক সমস্যা ইতিমধ্যে দেখা যাচ্ছে।
    উপরের ভিত্তিতে, 60% বিশেষজ্ঞ, D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণের সহায়তায় এই মুদ্রাজুড়ির 1.0975-এর সহায়ক স্তরে পতন হবে বলে পূর্বাভাস করেছেন। পরবর্তী লক্ষ্য হল 100 পয়েন্ট নীচে।
    বেশীরভাগ নির্দেশক দক্ষিণদিশার প্রতি চেয়ে রয়েছেনঃ তাদের 50% লাল, 25% সবুজ এবং 25%নিরপেক্ষ ধূসর রংয়ের দেখাচ্ছে।
    তেজীবাজারের সমর্থকরা বর্তমানে লঘিষ্ঠ। তাদের মতে, এই মুদ্রাজুড়ি 1.1100-এর অঞ্চলে সহায়ক স্তরকে ভাঙ্গতে সমর্থ হবে না এবং এই মুদ্রাজুড়ি সজোরে ঘুরে এসে 1.1265-1.1325-এর উচ্চতায় উঠতে পারে।
    বর্তমানে, আসন্ন সপ্তাহের উল্লেখযোগ্য ঘটনাগুলির প্রতি মনোযোগ দেওয়া উচিৎ হবে। সোমবার, 3ই জুনে আমরা ইউরোজেন, আমেরিকা এবং চীনের ব্যবসায়িক কার্যকলাপ সূচক, এবং মঙ্গলবারে ইউরোজোনের মুদ্রাস্ফীতি এবং বেকারত্বের ডেটা প্রকাশের জন্য অপেক্ষা করছি। বৃহস্পতিবার, 6ই জুনেও ইউরোপের খবরই থাকবে। এগুলি হল জিডিপি, সুদের হারের উপরে ইসিবি-র সিদ্ধান্ত, এবং সবথেকে গুরুত্বপূর্ণভাবে, আর্থিক নীতির বিষয়ে ইসিবি-র সাংবাদিক বৈঠক। এবং, পরিশেষে, যেমন হয়ে থাকে, আমরা মাসের প্রথম শুক্রবারে ইউএস শ্রমবাজারের পরিসংখ্যানের প্রকাশ দেখতে পারবে। বিশেষজ্ঞরা আশা করছেন যে এনএফপি (NFP)- প্রায় 30% পতন হতে পারে (263 হাজার থেকে 190 হাজার) যা কিছু সময়ের জন্য ডলারকে দুর্বল করবে;

  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী পদের মুখ্য প্রতিদ্বন্দী হলেন লন্ডনের প্রাক্তন মেয়র এবং বিদেশমন্ত্রী বরিস জনসন। এবং এটি পাউণ্ডের জন্য একটি খারাপ খবর কারণ জনসন এক কঠোর "ব্রেক্সিট" এবং ইইউ থেকে কোন চুক্তি ছাড়াই বেরিয়ে আসার সমর্থক। এরকম কোন পরিণতি বাজারকে ভীত করে তুলছে, এবং বর্তমানে 65% বিশেষজ্ঞ, 90% দোদুল্যমান সূচক এবং D1-তে 100% প্রবণতা নির্দেশকদের সহায়তায়, আশা করছেন যে ব্রিটিশ মুদ্রা আরো দুর্বল হবে এবং এই মুদ্রাজুড়ির পতন প্রথমে 1.2555-এর সহায়ক স্তরে পৌঁছাবে এবং তারপরে 2018 সালের নিম্ন অবস্থান 1.2475 এবং 1.2405-এ গিয়ে থামবে।
    বাকি 35% বিশ্লেষক বিশ্বাস করেন যে গত দুই সপ্তাহে এই মুদ্রাজুড়ির আচরণ হল এক শক্তিশালী সংশোধনের আগমনী, যার ফলে এটি 1.2745-এর উচ্চতায় ফিরে আসতে পারে, অথবা এমনকি 1.2825-এর প্রতিরোধক স্তরেও পৌঁছাতে পারে।
    D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণের দ্বারা একটি সমঝোতা সূত্র দেওয়া হয়েছে। এর পঠন অনুসারে, এই মুদ্রাজুড়ি প্রথমে 1.2825-এর স্তরে পৌঁছাতে পারে, আর তারপরে, ঘুরে গিয়ে, 1.2405-1.2475-এর অঞ্চলের তলদেশে যেতে পারে;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। 100% প্রবণতা নির্দেশক এবং H4 ও D1-তে 85% দোদুল্যমান সূচক লাল চিহ্ন দেখালেও, পরিস্থিতি অত সরল নয়ঃ 15% দোদুল্যমান সূচক ইতিমধ্যেই ইঙ্গিত দিয়েছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক মাত্রায় বিক্রি হয়েছে। সহায়ক স্তর হল 107.75 এবং 107.00, প্রতিরোধক স্তর হল 109.15, 109.65, 110.35 এবং 110.65।
    বিশেষজ্ঞদের মতে, ভোটগুলি নিম্নলিখিতভাবে বিভক্ত রয়েছেঃ 50% মন্দাবাজারের দিকে, 25% তেজিবাজারের দিকে, এবং বাকি 25% কি করবে না বুঝতে পেরে মাঝামাঝি দিকে রয়েছে। কার অবস্থান সবথেকে সঠিক হবে তা শেয়ারবাজারের উপর নির্ভর করবে যাদের সাথে এই মুদ্রাজুড়ির এক শক্ত পারস্পরিক সম্পর্ক রয়েছে, এবং প্রথাগতবাবে, ট্রাম্পের ট্যুইট মূলত ইউএস-চীনের বাণিজ্য যুদ্ধের ক্রমের প্রতি নিয়োজিত হয়ে আছে। ঠিক একই সময়ে, মাঝারি-মেয়াদের রূপান্তরের সময়ে পরিস্থিতি আমূল পরিবর্তন দেখা যাচ্ছেঃ এখানে ইতিমধ্যেই 75% তাদের হাত ডলারের দিকে তুলেছেন;
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। ছয় বছর আগে, 2013 সালে, Future-এর লুকা ম্যাগনোট্টার এক অস্বাভাবিক বার্তা প্রকাশিত হয়েছিল, যিনি Bitcoin-এর মূল্যের ভবিষ্যতবাণী করেছিলেন, আর তা আশ্চর্যজনকভাবে নির্ভুল বলে প্রমাণিত হয়েছে। ম্যাগনোট্টা লিখেছিলেন, “গড়পড়তায়, প্রতি বছরে Bitcoin-এর মূল্য প্রায় 10 গুণ করে বাড়ছে।  এটির দর 2010 সালে 0.1$ থেকে 2011 সালে 1$ হয়েছিল, 2012 সালে 10$, 2013 সালে 100$। তারপরে বৃদ্ধি ধীরগতিতে হবে, এবং প্রতি দুই বছর অন্তর 10 গুণ করে বৃদ্ধি হবেঃ 2015 সালে Bitcoin-এর দরের বৃদ্ধি হয়ে 1,000$ হবে, 2017 সালে 10,000$-এ, 2019 সালে 100,000$-এ এবং 2021 সালে 1,000,000$ হবে।”
    2019 সাল শেষ হতে এখনও সাত মাস বাকি আছে। অথবা কি এটা কেবলমাত্র সাত মাস? যাই হোক না কেন, ম্যাগনোট্টার দ্বারা স্থাপিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য এই ক্রিপ্টোমুদ্রাকে অতি অবশ্যই এক দুদার্ন্ত বৃদ্ধি দেখাতে হবে।
    স্বল্প-সময়ের পূর্বাভাসের কথা তুললে, এক বিখ্যাত বিশ্লেষক পিটার ব্র্যাণ্ডট একটি মত প্রকাশ করেছিলেন যে, অসংখ্য ট্রেডারদের FOMO (বাদ পড়ার আশঙ্কা) লক্ষণ দ্বারা চালিত হয়ে, Bitcoin-এর মূল্য শীঘ্রই 10,000$-এর উপরে পৌঁছাবে। ঠিক একই সময়ে, ব্র্যাণ্ডট জোর দিয়েছেন যে বরং এক দারুণ সংশোধন খুব দূরে নয়ঃ তেজিবাজার নিশ্চিতভাবে লাভ নিতে চাইবে, এবং এই বিক্রি ক্রেতাদের "পরিত্যাগ করা ট্রেনে ঝাপিয়ে পড়ার চেষ্টা বন্ধ করবে।"
    ব্র্যাণ্ডটের মতের থেকে আলাদা হয়ে বেশীরভাগ বিশ্লেষক (70%)  BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ির জন্য এক পরিমিত লক্ষ্যও স্থির করেছেন, 9,000$-এর উপরে স্থির থাকা। বাকি 30% বিশ্লেষক বিশ্বাস করেন যে এই ক্রিপ্টোজুড়ি একটু থামবে এবং 7,500-8,500$-এর পার্শ্ববর্তী চ্যানেলে গমন করবে।
    পূর্বাভাসের শেষে বলতে গেলে, এটি অবশ্যই মনে রাখতে হবে এই প্রবন্ধটি লেখার সময় হল শুক্রবার, 24:00 GMT। এবং এটি সম্ভব যে আসন্ন সপ্তাহকালীন অবকাশে, যেমন নাকি একের বেশী ঘটে গিয়েছে, তেজিবাজার আবারও একবার Bitcoin-এর দরকে উপরের দিকে নিয়ে যাবে।

 

 -রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের সম্পূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)