মার্চ 23, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। ফেডারেল রিজার্ভ 2.5% সুদের হার অপরিবর্তিত রেখেছে, এবং এই বছরে এর আর বৃদ্ধি করতে যাচ্ছে না। ফেডও ইউএস জিডিপি এবং মুদ্রাস্ফীতির পূর্বাভাস হ্রাস করেছে এবং 2019-2021 সালের জন্য বেকারত্ব বৃদ্ধির পূর্বাভাস করেছে।
    আমেরিকান নিয়ন্ত্রকের এরকম কার্যকলাপ এবং বিবৃতি মন্দার শুরু হওয়া নিশ্চিত করেছিল যা নিশ্চিতভাবে নেতিবাচকভাবে ইউএস মুদ্রাকে প্রভাবিত করেছিল আর এর ফলে, বৃহস্পতিবার, 20শে মার্চে ডলারের দরে হ্রাস পেয়ে 1 ইউরোয় 1.1447 ডলারের মূল্য পতন হয়েছিল। কিন্তু এই পতন জারি না থেকে, এটি প্রায় সমস্ত বৃহৎ মুদ্রার তুলনায় নিজের দরের পুনরুদ্ধার করেছিল, এবং প্রধানতঃ ইউরোর তুলনায়। এটি হবার কারণ হল জার্মানী থেকে আসা হতাশজনক ডেটার কারণে – ফেব্রুয়ারীতে PMI (উৎপাদন ক্ষেত্রের ব্যবসায়িক সক্রিয়তা সূচক) যা প্রত্যাশিত মূল্য 48.0-এর তুলনায় মাত্র 44.7 হয়েছিল।  এই খবরের ফলে বিশ্বজনীন আর্থিক সঙ্কটের বিষয়ে আবারো দুঃশ্চিন্তা বেড়েছিল এবং এই কারণে যে কেবলমাত্র ইউরোর অবমূল্যায়ন হয়েছিল তাই নয়, কিন্তু শেয়ার এবং বণ্ডেরও দারুণ পতন হয়েছিল। এই EUR/USD মুদ্রাজুড়ি দুই দিনে 175 পয়েন্ট  খুঁইয়েছিল, আর তারপরে সামান্য কিছুটা ঘুরে সপ্তাহটি 1.1300-এ শেষ করেছিল;  
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। ব্রেক্সিটের চূড়ান্ত পর্যায় বিলম্বিত হয়েছে। পাউণ্ডের অভাগা অবস্থাও বিলম্বিত হয়েছে। সপ্তাহের প্রথম চার দিনে ব্রিটিশ মুদ্রা প্রায় 300 পয়েন্ট খুঁইয়ে 1.3000-এর স্তরের কাছাকাছি পৌঁছিয়েছিল। তবে, ইউএস ফেডারেল রিজার্ভের প্রধান জেরোর পাওয়েলের কৌশলপূর্ণ বাগাড়ম্বর এবং ইউএ-এর “সহায়তা“ যা প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে-কে তার চুক্তিটি গ্রহণ করার বিষয়ে সমাধান করার জন্য 12ই এপ্রিল পর্যন্ত সময় দিয়ে পাউণ্ডকে খাদের কিনারা থেকে সামান্য দূরে সরিয়ে রেখেছিল এবং 1.3200-এ এক শক্তিশালী সহায়ক/প্রতিরোধক স্তরে পাঁচ-দিনের শেষে এসে থেমেছিল;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। ইউরোপীয়ান “সহকর্মীদের” থেকে ভিন্ন মত হয়ে, গত সপ্তাহটি ইয়েনের পক্ষে সাফল্যময় ছিল। মন্দাবাজারের আশঙ্কার প্রেক্ষাপটে, বৃহৎ আর্থিক পূর্বাভাসের এক পুনরাবৃত্তি এবং আমেরিকা ও ইউরোপে শেয়ার ও বণ্ডের দরের পতনে, এই মুদ্রাজুড়ির 22শে মার্চের মধ্য-শুক্রবারে 109.70-এ পতন হয়েছিল, এবং চূড়ান্ত অবস্থান 109.90-এ হয়েছিল; 
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। ডিজিটাল মুদ্রার আসন্ন বৃদ্ধির বিষয়ে পূর্বাভাস দিয়ে সমস্ত ধরণের বিশেষজ্ঞরাই জনসাধারণকে সম্মোহিত করে রেখেছিলেন। তাই বিখ্যাত আমেরিকান বিনিয়োগকারী টিম দ্রেপার বিশ্বাস করেন যে আগামী দুই বছরের মধ্যে ক্রিপ্টেমুদ্রায় ব্যাপক রূপান্তর ঘটবে। এবং টম লি, একজন আর্থিক বিশেষজ্ঞ এবং Fundstrat Global Advisors-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা, CNBC-তে একটি সাক্ষাৎকারে এক স্বল্প-মেয়াদী পূর্বাভাস দিয়েছেন এটি বিবৃত করে যে ছয় মাসের মধ্যে bitcoin বাজারে মন্দা পরিস্থিতির পরিবর্তে একটি তেজিবাজার আসতে চলেছে। তার মতে, ঘুরে দাড়াবার সময়টি হল আগস্টে, এবং BTC-এর দর সহজেই 10-20,000$-এ পৌঁছাতে পারবে।
    যদিও আপাত সত্য, আশাবাদের বিপরীতে, একদম হতাশজনক স্বরও শোনা গিয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, শিকাগো বোর্ড অপশনস্ এক্সচেঞ্জ (CBOE), যারা একমসয় ভবিষ্যৎ ট্রেডিং শুরু করেছিল, বর্তমানে নতুন লেনদেন করা প্রত্যাখ্যান করেছে।
    এরকম খবরের পরিপ্রেক্ষিতে, আমরা যেমন পূর্বাভাস দিয়েছিলাম, BTC/USD মুদ্রাজুড়ি 4,150$-এর দরের সীমা ভাঙ্গতে পারে নি। বিনিয়োগকারীদের জন্য শুধুমাত্র এটি আশার কথা হতে পারে যে এই মুদ্রাজুড়ি সারা সপ্তাহ ধরে 4,000$ দরের নীচে নামে নি, যার ফলে আমরা উর্ধ্বমুখী প্রবণতার কথা ভাবতে পারি, যদিও তা দুর্বল মাত্র।
    এছাড়াও, Litecoin (LTC/USD) উর্ধ্বমুখী চ্যানেলের সীমা পরিত্যাগ করে নি, Ethereum (ETH/USD) 139.00$-এর দিগন্তে স্থিতিশীল রয়েছে, এবং Ripple (XRP/USD)-এর ক্ষেত্রে, 0.318$-এর স্তরটিকে 10-সপ্তাহের মূল পয়েন্ট হিসাবে গণ্য করা যেতে পারে। 

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। এই মুদ্রাজুড়ির বিষয়ে বলা যেতে পারে সম্পূর্ণ...অনিশ্চয়তা। একদিকে, ইউএস জিডিপি-র ধীর গতি, অপরদিকে, জার্মান অর্থনীতির প্রত্যাশার বিষয়ে হতাশা। সুদের হার বৃদ্ধি করায় ফেড-এর প্রত্যাখ্যান ডলারের বিরুদ্ধে যাচ্ছে, এবং ইইউ থেকে ইউকে-র প্রস্থানের বিষয়ে সীমাহীন অনিশ্চয়তা ইউরোর বিরুদ্ধে যাচ্ছে। 10-বছরের ইউএস ট্রেজারী বণ্ডে আয় গত এক বছর ধরে একদম নীচে অবস্থান করছে, কিন্তু 10-বছরের জার্মান বণ্ডে আয় 0%-এর নীচে যেতে বসেছে। ইউএস ফিউচারস্ S&P 500-এর 0.5% পতন হয়েছে, এবং ইউরোপীয়ান শেয়ারবাজার নেতিবাচক দিকে রয়েছে, আর মূল সূচকগুলির 1% ক্ষতি হতে যাচ্ছে।
    এই দোলন অনির্দিষ্টকাল ধরে চলতে পারে। সেই কারণে এই সপ্তাহে বিশেষজ্ঞদের সমর্থন সমানভাবে বিভক্ত হয়ে রয়েছে, 50:50। এটি অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে মধ্য-মেয়াদী পূর্বাভাসের রূপান্তরে, 70% বিশেষজ্ঞরা ইতিমধ্যেই তেজিবাজারের পক্ষে রয়েছেন।
    H4-এ রৈখিক বিশ্লেষণ প্রথমে আসন্ন দিনগুলির জন্য 1.1380 -এর স্তরে উত্থান দেখাচ্ছে, তারপরে 1.1175-এর স্তরে পতন, যার পরে এই মুদ্রাজুড়ির 1.1215-1.1570-এর সংকীর্ণপ্রান্তের মধ্যবর্তী-চ্যানেলে ফিরে আসা উচিত হবে।
    আসন্ন সপ্তাহের ঘটনাগুলির কথা বলতে গেলে, আমরা ইসিবি-র প্রধান মারিও দ্রাঘির বুধবার, 27শে মার্চের বক্তব্যের প্রতি নজর দেয়ার সাথে সাথে বৃহস্পতিবার, 28শে মার্চে জার্মান উপভোক্তা মূল্য সূচক এবং ইউএস জিডিপি-র ডেটার ঘোষণার প্রতিও নজর রাখতে পারি। এছাড়াও, এই পূর্বাভাস অনুযায়ী, জিডিপি-র প্রকৃত মূল্য পূর্বেকার থেকে 0.2% কম হতে পারে।
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে ইউরোপীয়ান ইউনিয়নকে 30শে জুন 2019 পর্যন্ত ইইউ থেকে ব্রিটেনের প্রস্থানের জন্য অপেক্ষা করার অনুরোধ জানিয়েছিলেন। তবে, ইইউ ইতিমধ্যে বলেছে যে এই বিলম্ব আরো দীর্ঘ করা উচিত হবে। অন্যথা, আর কোন বিলম্বের প্রয়োজন নেই। এত স্বল্প সময়ে ব্রেক্সিটের স্থানান্তর একদম অভিপ্রেত নয়, কারণ এটি সাধারণভাবে সংশয়তা বৃদ্ধি করবে, যেই বিষয়ে ইতিমধ্যে সবাই ক্লান্ত হয়ে পড়েছে, এবং যার কারণে পাউণ্ডের উপর ক্রমাগত চাপ পড়ে চলেছে।
    এই মুহূর্তে, বেশীরভাগ বিশেষজ্ঞরা (60%) মনে করেন যে এই মুদ্রাজুড়ির আবারো 1.3000-এর স্তরে পৌঁছানো উচিত হবে, এবং যদি সেখানে ভেঙ্গে পড়ে, এই জুড়ির 11ই মার্চের নিম্ন অবস্থান, 1.2955-এর স্তরে পৌঁছানো উচিত হবে।
    ব্রেক্সিটের বিষয়ে কোন ইতিবাচক খবর প্রকাশিত হলে এক বিকল্প পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে, যেই ক্ষেত্রে এই মুদ্রাজুড়ির 1.3310-এর উচ্চতায় বৃদ্ধি পেতে পারে। নিম্নলিখিত প্রতিরোধক স্তরগুলি হল 1.3350 এবং     1.3 445;

  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। প্রবণতা নির্দেশক এবং H4 ও D1-তে দোদুল্যমান সূচক উভয়েরই অপ্রতিরোধ্য গরিষ্ঠ সংখ্যা লাল রং দেখাচ্ছে। তবে, ইতিমধ্যে দোদুল্যমান সূচক উভয় সময়সীমায় ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে। D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণ এই প্রবণতার এক সম্ভাব্য বিপরীত দিকে গিয়ে উত্তরদিশার প্রতি গমনের ইঙ্গিত দিচ্ছে, এর পঠন অনুযায়ী, এই মুদ্রাজুড়ি 110.75-112.15-এর অঞ্চলে ফিরে আসতে পারে।
    বিশেষজ্ঞদের মতামত নিম্নলিখিতভাবে বিভক্ত হয়েছেঃ 50% বিশেষজ্ঞ এই মুদ্রাজুড়ির আরো পতন হবে বলে পূর্বাভাস দিচ্ছেন, 30% বিশেষজ্ঞ এই জুড়ির উর্ধ্বমুখী পরিবর্তনের এবং 20% বিশেষজ্ঞ এর তির্যক গমনাগমনের কথা বলছেন। সাম্প্রতিককালে যেমন ঘটে চলেছে, এই প্রবণতাগুলির গঠন এক নতুন বিশ্ব আর্থিক সঙ্কটের সমর্থন বা প্রত্যাখ্যানের সম্ভাবনার প্রতি ইউএস-চীনের আলোচনার অগ্রগতি এবং ইউরোপ ও ইউএসএ থেকে বৃহৎ অর্থনীতি সূচকের দ্বারা প্রভাবিত হবে।  
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। ক্রিপ্টোবাজারের সর্বমোট মূলধন নিবেশ গত নভেম্বরের পরিমাণে গিয়ে পৌঁছিয়েছে, যা বুধবার, 20শে মার্চে 141.6 বিলিয়ন ডলারের উচ্চতায় পৌঁছিয়েছে। এটি সম্ভব হয়েছে এই কারণে যে, অনেকদিন পরে প্রথমবার, 70% বিশেষজ্ঞ কোন হতাশজনক পূর্বাভাস দেন নি, এবং সীমিত আশাবাদের মধ্যে রয়েছেন। তাদের মতে, BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ির দর পরের সপ্তাহে 3,900$-এর নীচে যাবে না, কিন্তু 4,200$-এর প্রতিরোধক স্তর অতিক্রম করার চেষ্টা করবে। তবে, মধ্যবর্তী-মেয়াদের পূর্বাভাসে রূপান্তরণে, ক্ষমতার ভারসাম্যের পরিবর্তন হবে, এবং এখানে, আগের মতই, 70% বিশ্লেষক মন্দাবাজারের প্রতি সমর্থন জানাবেন, যাদের মতে এই ক্রিপ্টোজুড়ির গত বসন্তের নিম্ন অবস্থান 3,000$-এ পতন হতে পারে।

 

-রোমান বাটকো, NordFX

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের সম্পূর্ণ ক্ষতি হতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)