জানুয়ারী 19, 2019

-প্রথমে গত সপ্তাহের ঘটনাবলী পর্যালোচনা করা যাকঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। একটি দৃশ্যপট দেখিয়েছিল যে এই মুদ্রাজুড়ি মাঝারি-মেয়াদে 1.1300-1.1500-এর তির্যক চ্যানেলের সীমায় ফিরে আসবে, এবং এর কেন্দ্রীয় রেখাকে মূল রেখাকে লক্ষ্য হিসাবে ধরা হয়েছিল। এই দৃশ্যপটই ফুটে উঠেছিল। মঙ্গলবার, 15ই জানুয়ারীতে ইতিমধ্যে এই মুদ্রাজুড়ি 1.1400-এর দিগন্তে পৌঁছিয়ে গিয়েছিল, আর তারপরে সপ্তাহান্তিক অবকাশ পর্যন্ত গিয়ে দোদুল্যমান সূচকগুলিকে এক মোটামুটি সংকীর্ণ পরিসরে নিয়ে গিয়েছিল। আর ঠিক একই সময়ে, এই মুদ্রাজুড়ি ক্রমাগত চাপে ছিল, যা মন্দাবাজারকে সপ্তাহের কাজের দিনগুলির শেষে 1.1360-এর স্তরে নামিয়ে নিয়ে এসেছিল।
    ইউরোর পতনের অনেক কারণে আছেঃ এটি হল ইউরোজনের (সর্বপ্রথমে, জার্মানী)দুর্বল অর্থনৈতিক সূচক, এবং সম্ভাব্য রপ্তানীর পতন, এবং ব্রেক্সিট নিয়ে বিশৃঙ্খলা। আর ঠিক একই সময়ে, ব্রিটিশ পাউন্ডের দর বৃদ্ধির সাম্প্রতিক প্রচেষ্টাও ইউরোপীয়ান মুদ্রাকে কোন সুবিধা দেয় নি।  
  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। ইউকে-র ইউ থেকে প্রস্থানের সম্ভাব্য মুলতুবির কথাবার্তার পরিপ্রেক্ষিতে এবং এমনকি এক দ্বিতীয় গণভোটের সম্ভাবনায়, ব্রেক্সিট ভোটে প্রধানমন্ত্রীর থেরেসা মে-র ব্যর্থতার পরে EUR/GBP এবং GBP/CHF উভয় মুদ্রাতেই পাউণ্ডের উত্থানের খেলা হতে দেখা গিয়েছিল। ইউএস ডলারের তুলনায় পাউণ্ডের কথা বলতে গেলে, মঙ্গলবারে 1.2667-এর স্তরে যুদ্ধ করে, এই জুড়ি বৃহস্পতিবারে 330 পয়েন্টের বেশী উঠে হয়ে 1.3000-এর লক্ষ্যণীয় স্তরে পৌঁছিয়েছিল। এর পরে, এক শক্তিশালী সজোর প্রত্যাঘাত এসেছিল, এবং এই মুদ্রাজুড়ি সপ্তাহটির শুরুতে যেখান থেকে শুরু করেছিল, সেখানেই সেই 1.2870-এর অঞ্চলে ফিরে এসেছিল;     
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। ইয়েনের এক নিরাপদ স্বর্গরাজ্য হিসাবে আকর্ষণীয়তা এবং ঝুঁকিপূর্ণ শেয়ারে বিনিয়োগকারীদের আগ্রহের মধ্যেকার ভারসাম্য যা গত সপ্তাহে দেখা গিয়েছিল, তাসত্ত্বেও কিন্তু এই সপ্তাহে আরো অনেক প্রতিশ্রুতিসম্পন্ন বিনিয়োগ ঝুঁকির দিকেই চলে গিয়েছিল। এর ফলে, এই মুদ্রাজুড়ির দর উপরে উঠে গিয়েছিল, এবং সপ্তাহের শেষে, প্রতি ডলারের দর 109.76 ইয়েন হয়েছিল;   
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। একটি বিখ্যাত উপন্যাসের নামের ভাষান্তর করে বলা যেতে পারেঃ "ক্রিপ্টোফ্রন্টে সব শান্ত রয়েছে।" ইতিবাচক খবরের মধ্যে রয়েছে যে থাইল্যাণ্ড স্টক এক্সচেঞ্জের ডিজিটাল শেয়ারে লেনদেনের জন্য একটি লাইসেন্স পাবার পরিকল্পনা। তবে, এই প্রচেষ্টার শুরুর সময় এখনও জানা যায় নি। Ethereum নেটওয়ার্কে কন্সটান্টিনোপলের কঠিন কাঁটাপথ অসহায় অবস্থাগুলি না অপসারিত হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য পিছিয়ে গিয়েছিল। সাধারণভাবে বলতে গেলে, এক সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তা বিরাজ করেছিল। এমন কি Gate.io এক্সচেঞ্জ থেকে চুরি হয়ে যাওয়া ETC টোকেনগুলি তাদের এই কাজের কোন ব্যাখ্যা দেওয়া ছাড়াই যেকোন কারণে আক্রমণকারীরা ফেরৎ দিয়েছিল।
    এই অস্পষ্ট খবরের প্রেক্ষাপটে, BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ির কোন ওঠানামা হয় নি। ঠিক একই সময়ে, এর দোদুল্যমান সূচকের পরিসর, বুধবার থেকে শুরু করে, ক্রমাগত হ্রাস পেয়ে যাচ্ছে। Bitcoin-কে অনুসরণ করে Litecoin, Ripple এবং অন্যান্য শীর্ষ বিকল্প মুদ্রাগুলিও তির্যক গমনের পথে গিয়েছিল। এবং এমন কি Ethereum-ও আংশিকভাবে ক্ষতি পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছিল। এর ফলে, সাত দিনে ETH/USD ক্রিপ্টোজুড়ির পতন মাত্র 5% হয়েছিল।

 

-আসন্ন সপ্তাহের পূর্বাভাসের বিষয়ে, অনেক বিশ্লেষকদের মতামতের সাথে সাথে প্রাযুক্তিক ও রৈখিক বিশ্লেষণের বিভিন্ন পদ্ধতির ভিত্তিতে কৃত পূর্বাভাসগুলিকে সংক্ষিপ্ত করে আমরা নিম্মলিখিত বক্তব্য রাখছিঃ

  • EUR/USD মুদ্রাজুড়ি। ইউরোপীয়ান মুদ্রার বিষয়ে বৃহৎ বিনিয়োগকারীদের চিন্তা উপরে তালিকাবদ্ধ করা হয়েছে। তবে, ইউরোপের সব ফলাফলই খারাপ নয়। ইউরো এক্সচেঞ্জের কম দরের কারণে, PMI কার্যকলাপ সূচকের আর পতন হয় নি, এবং অনেক কারণ ইউরোজোনের অর্থনীতির স্থিতির দিকে ইঙ্গিত করছে। এছাড়াও, শেয়ারবাজার 2019 সালের প্রারম্ভিক শরৎকালে ECB-এর প্রতিশ্রুতিপূর্ণ সুদের হারের বৃদ্ধির জন্য অপেক্ষা করছে। পক্ষান্তরে, ইউএস ডলারের কথা উল্লেখ করলে, এখানে, অদূর ভবিষ্যতে আরেকবার দর বৃদ্ধির সম্ভাবনা প্রকৃতই শূন্য। অর্থনীতির আর বৃদ্ধিও সন্দেহজনক। বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে রাজনৈতিক সঙ্কট এবং বর্তমানে সরকারী কাজকর্মের বিরতির কারণে বার্ষিক জিডিপির 0.5-0.75% পর্যন্ত পতন হতে পারে।
    এই সব কারণে 45% বিশ্লেষক ইউরোর সম্ভাব্য শক্তিশালী হবার কথা বলছেন এবং আসন্ন প্রবণতা মন্দাবাজার থেকে তেজিবাজারের দিকে যাবে বলে মনে করছেন। আশু লক্ষ্য হল 1.1450-এর অঞ্চলে দু-মাসের উর্ধ্বমুখী চ্যানেলের কেন্দ্রীয় রেখা, তারপরে 1.1500 এবং 1.1570-এর স্তরে যাওয়া। 15% দোদুল্যমান সূচক ইঙ্গিত দিচ্ছে যে এই মুদ্রাজুড়ির অধিক বিক্রয় হয়েছে যারা এই পূর্বাভাসের সাথে সহমত হয়েছে।
    বাকি 85% দোদুল্যমান সূচকের সাথে সাথে H4 ও D1-তে 100% প্রবণতা নির্দেশকও লাল রং দেখাচ্ছে। 55% বিশেষজ্ঞরা এই মুদ্রাজুড়ির আরো পতনের উপরে জোর দিচ্ছেন। সহায়ক স্তর হল 1.1300, 1.1270 এবং 1.1215।
    বৃহস্পতিবার,  24 শে জানুয়ারীতে সুদের হারের উপরে ইসিবি সিদ্ধান্তকে আগামী সপ্তাহের একটি ঘটনা হবে বলে ধরা যেতে পারে। তবে, যেহেতু এই দর অপরিবর্তিত থাকবে বলে একশো শতাংশ সম্ভাবনা রয়েছে,  তাই এই সিদ্ধান্ত এই মুদ্রাজুড়ির দরে কোন প্রভাব ফেলবে না। বরং গ্রেট ব্রিটেনের পার্লামেন্টে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের বক্তব্যের প্রতি আগ্রহ বেশী থাকবে, যেখানে তিনি ইউ থেকে তার দেশের প্রস্থানের বিকল্প পরিকল্পনার বিষয়ে ঘোষণা করতে পারেন; 

  • GBP/USD  মুদ্রাজুড়ি। স্বাভাবিকভাবে, ব্রেক্সিটের সাথে যুক্ত সবকিছুই পাউণ্ডের দরকে সরাসরি প্রভাবিত করছে। এবং এখানে আরো অগ্রসর হবার জন্য অনেক বিকল্প রয়েছে, যার কারণে ব্রিটিশ মুদ্রা একটি ঝুঁকিপূর্ণ এবং অনিশ্চিত সম্পদ হয়ে দাড়াচ্ছে।
    নির্বাচন হবার সম্ভাবনা কতটা? মে-র সরকার থেকে কর্বিন সরকারে কি পরিবর্তিত হবে? ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন থেকে কঠোর “বিচ্ছেদ”-র দৃশ্যপট কতটা সম্ভব? এই ইউ চুক্তির ধারা 50-এ অনুসারে কি “বিচ্ছেদ”-এর সময়কে বিলম্বিত করা সম্ভব? নতুন গণভোটের কি কোন সম্ভাবনা রয়েছে? এবং এই গণভোট কি ব্যাপকহারে বিক্ষোভ এবং দাঙ্গার কারণ হবে না?
    প্রশ্ন, প্রশ্ন আর প্রশ্ন......এবং সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তা, যা হল গুজব এবং সমস্ত ধরণের ফাটকাবাজির এক উর্বর ক্ষেত্র। এই পরিস্থিতিতে, 40% বিশেষজ্ঞ মনে করেন যে এই মুদ্রাজুড়ির এখনও অবধি উত্থানের সম্ভাবনা রয়েছে, 40% বিশেষজ্ঞ পতনের পূর্বাভাস করছেন, এবং বাকি 20% ছবি আরো স্পষ্ট হবার জন্য অপেক্ষা করার পরামর্শ দিচ্ছেন এবং মনোযোগ সহকারে পরিস্থিতির প্রতি লক্ষ্য রাখতে বলছেন।
    সহায়ক স্তর হল 1.2800-1.2830 এবং 1.2615-1.2645-এর অঞ্চল। প্রতিরোধক স্তর হল 1.2920, 1.3000 এবং 1.3070;
  • USD/JPY মুদ্রাজুড়ি। 90% দোদুল্যমান সূচকের সাথে সহমত হয়ে বেশীরভাগ বিশেষজ্ঞরা (60%) মনে করছেন যে ঝুঁকিপূর্ণ সম্পদের দিকে মূলধন দৌড়াবে এবং ইয়েনের পতন হবে। এই ক্ষেত্রে, এই মুদ্রাজুড়ি 110.30-এর উচ্চতায় উঠতে পারে, এবং তারপরে আরো 100 -130 পয়েন্ট উপরে উঠে 2017-18 সালের শক্তিশালী সহায়ক/প্রতিরোধক স্তরে 111.55-এর অঞ্চলে গিয়ে পৌঁছাবে।
    40% বিশেষজ্ঞ, D1-তে রৈখিক বিশ্লেষণ এবং 10% দোদুল্যমান সূচক দ্বারা এক বিকল্প দৃষ্টিভঙ্গি সমর্থিত হয়েছে যারা এই মুদ্রাজুড়ির অধিক ক্রয়ের ইঙ্গিত দিচ্ছে। মূল সহায়ক স্তরগুলি হল 109.00 এবং 107.75;
  • ক্রিপ্টোমুদ্রা। সারা সপ্তাহ ধরে, BTC/USD ক্রিপ্টোজুড়ির 3,570-3,800$-এর সংকীর্ণ পরিসরে লেনদেন হচ্ছে। প্রায়ই, এরকম সমাহত ভাব একটি শক্ত মূল্যের ওঠানামার পথ প্রদর্শক হয়ে থাকে। 45% বিশ্লেষক মনে করছেন যে এই ক্রিপ্টোজুড়ি এই চ্যানেলের নীচের সীমারেখাকে ভাঙ্গবে, এবং যদি তাতে সফল হয়, এই জুড়ির 2018 সালের নিম্ন  অবস্থান 3,200-3,250$-এর অঞ্চলে পতন হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। পক্ষান্তরে, সামান্য বেশী পরিমাণে বিশেষজ্ঞরা (55%), একটি উর্ধ্বমুখী সজোর প্রত্যাঘাতের আশা করছেন। লক্ষ্য হল এই ক্রিপ্টোজুড়ির 3,850-4,215$-এ ফিরে আসা। এই আশাবাদের কারণ হল ক্রিপ্টোবাজারে মূলধন বিনিয়োগ পরিমাণের বেশ কিছুটা বৃদ্ধি পাওয়া, যা 13ই জানুয়ারীর তুলনায় প্রায় 5% বৃদ্ধি পেয়ে, 130 বিলিয়ন ডলারের সীমায় পৌঁছিয়েছে।  

 

-রোমান বাটকো, NordFX 

 

-বিজ্ঞপ্তিঃ এই লেখনীগুলিকে আর্থিক বাজারে লেনদেন করার জন্য বিনিয়োগ বা নির্দেশিকার জন্য সুপারিশ হিসাবে গণ্য করা উচিত হবে নাঃ এগুলি শুধুমাত্র তথ্যমূলক উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। আর্থিক বাজারে ট্রেডিং ঝুঁকিপূ্র্ণ এবং এতে গচ্ছিত অর্থের ক্ষতি হয়ে যেতে পারে।  


« বাজার বিশ্লেষণ ও সংবাদ
প্রশিক্ষণ
গ্রহণ করুন
মার্কেটে নতুন? ব্যবহার করুন “শুরু করা যাক” বিভাগটি।
প্রশিক্ষণ শুরু করুন
আমাদের অনুসরণ করুন (সামাজিক নেটওয়ার্কগুলিতে)